একজন সিএনজি চালকের মানবিকতায় মুগ্ধ সিলেটবাসি

 

সিলেট প্রতিনিধি:এম রাসেল আহমেদ

 

 

জনাব মোঃ আরিফ পেশায় একজন সিএনজি চালক। নিজের একটি সিএনজি আছে, যারা স্বেচ্ছায় রক্তদান করেন তাদের জন্য জনাব আরিফকে ফোন দেয়া হলে, সিএনজি ভাড়া হিসেবে শুধু গ্যাস টাকা নিয়ে থাকেন।

সিএনজির ভাড়া তার কছে মূল্যহীন শুধু একটু সেবা করাই তার কাজ মনে করেন।এমন কি গভীর রাত তিনটা হোক কিংবা দুপুর বারোটা হোক যখনই কোনো রক্তদাতা বা রুগীর পরিবার ফোন দেয়া হয়, তখনি ছুটে যান।রুগীকে নিয়ে চলেন হাসপাতালে ও ক্লিনিকে।

এমন কি কোনো রক্তদাতা ফোনকল দিয়ে বলে আমার কাছে যাওয়ার ভাড়া নাই, কিন্তুু একজন রুগীর মানুষ কল দিছে রক্তদেয়ার জন্য, আমার দেয়ার ইচ্ছা আছে, ভাড়া জন্য যেতে পাচ্ছি না। তখনই রক্তদাতার কাছে পৌঁছে যান।

অনেক রোগীর পরিবার তাকে ফোন দিলে ডাক্তার নিয়ে পৌঁছে যান রোগীর বাড়িতে। অনেক পরিবারের কাছথেকে ভাড়া নেয়া হয়না।

এলাকাবাসী কাছে খবর নিয়ে জানতেপারি, তারা বলেন আমরা দেখেছি যে এরকম বিপদের সময়,
অনেক সিএনজি ডাইভার রয়েছে যে এই সুযোগে হেল্প করার কথা হেল্প না করে যেমন গলায় ছুরি দরে টাকা নিতেছে,আরিফ এদের চেয়ে ভিন্ন সত্যি এরকম আমরা মানবতার প্রেমিক পেয়ে খুব গর্বিত।কুলাউড়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সেই ব্যক্তিকে দেখা যায় কিংবা ব্লাড ক্যাম্পেইন বা রক্তদাতা কে নিয়ে পৌছে দেওয়া বিভিন্ন।সামাজিক কাজে দেখা যায় সত্যি আমরা আনন্দিত এরকম একজন আরিফ পেয়ে।

আমরা আরো জানতেপারি -ঈদের দিন কুলাউড়া থেকে প্রায়৬৫কিলোমিটা দূর সিলেট।রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ব্লাড দিতে চলে যান,
দুর্ভাগ্যবসত লাগেনি ঈদের নামাজ পড়ে ছুটে এসেছিলেন সেখানে অপেক্ষা করেছিলেন ৬থেকে ৮ঘন্টা,
তারপর চলে আসেন পরিবার-পরিজনকে নিয়ে কাটানো কথা সেখানে না কেটে নিজেকে ত্যাগ স্বীকার করে সিলেট রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন।

আজ ওনার ইচ্ছা পূরণ হয়েছে ভোর পাঁচটার দিকে ঘুম থেকে উঠে ছুটে চলে যান মৌলভীবাজার প্রাইভেট একটি হাসপাতালে।ঘন ঘন বৃষ্টি আর সাথে ঘূর্ণিঝড়ের মাঝে করেন রক্তদান।  ১২ তম বারের রক্তদান করলেন আরিফ।

আমাদের প্রত্যশা সমাজে প্রতিটি পরিবারে এরকম একজন আরিফ জন্ম হউক।আমাদের এই মানব সেবাকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহ্বান সেলুট জানাই আরিফকে

স্থানীয় রক্তদাতা সংগঠনে খোজনিয়ে জানা যায়, আরিফ অনেকর অজানা অচেনা কিন্তু আমাদের জানামতে একজন পারফেক্ট একজন মানুষ ব্লাড দেয়ার সময় হয়ে গেলে বসে থাকে না ফেসবুকে পোস্ট, আমার সময় হয়ে গেছে, ভাই আমার ব্লাড দেয়ার সময় হয়ে গেছে এরকম মানুষই তো একজন মানবতা প্রেমিক বলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares